গেমিং ল্যাপটপ বনাম ডেস্কটপ : ২০২১ সালে এসে কোনটি কিনবেন?

আপনার কি গেমিং ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ পিসি প্রয়োজন ? আপনার সুবিধার কথা মাথায় রেখে আপনি কোনটি কিনবেন করবেন তার সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। গেমিং ল্যাপটপ বনাম ডেস্কটপের মধ্যে নির্বাচন করার সময়, যে বিষয় গুলো গুরুত্বপূর্ণ তা জানা থাকলে আপনি নিজেই খুব সহজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন। তবে উভয়েরই বাজারে সমানতালে চাহিদা রয়েছে এবং উভয়েরই শক্তি এবং দুর্বলতা রয়েছে।

gaming-laptop-vs-desktop

গেমিং ল্যাপটপ বনাম ডেস্কটপ পিসি

গেমিং ল্যাপটপ বনাম ডেস্কটপ কেনার বিষয়টি যখন আসে তখন এটি আপনার সুবিধার কথা বিবেচনা করে উভয়টি হতে পারে। তাই সার্বিক দিক চিন্তা করে আপনার সেরা গেমিং ডেস্কটপ বা ল্যাপটপটিকে বাছাই করুন।

চলুন এবার চলুন দেখে নিই বিষয়গুলো –

পারফরম্যান্স

পারফরম্যান্স খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। একটা সময় ডেস্কটপ এককভাবে এখানে এগিয়ে ছিল এবং অপ্রতিদ্বন্দী ছিল। কিন্তু এখন আধুনিক গেমিং ল্যাপটপগুলি অবিশ্বাস্যভাবে দক্ষ এবং বেশ মান সম্পন্ন। তবে, ডেস্কটপ এখনো পারফরম্যান্সের বিবেচনায় এগিয়েই থাকবে। যদিও প্রিমিয়াম কোয়ালিটির ল্যাপটপগুলি অনেক ভাল মানের সেবা দিয়ে যাচ্চে, তবে সেগুলোর দামও আকাশছোয়া ।

পোর্টেবিলিটি

এইখানে এসে ডেস্কটপকে একদম কুপোকাত করে দেয় ল্যাপটপ। ল্যাপটপের সহজে বহনযোগ্যতার সুবিধাই একে এগিয়ে রাখে। আপনার জন্য যেটি অধিক্তর প্রয়োজনীয় সেটি চিন্তা করে আপনি ল্যাপটপ অথবা ডেস্কটপ নির্বাচন করুন। নিজেকে প্রশ্ন করুন কি কি কারনে আপনার পোর্টেবল ল্যাপটপ দরকার। যদি পোর্টেবল চিন্তা করেন তাহলে ল্যাপটপ আর যদি তা না হয় তাহলে ডেস্কটপ বিকল্প হতে পারে।

ল্যাপটপ

ল্যাপটপের প্রধান সুবিধা হচ্ছে বহনযোগ্যতা। দক্ষতা মূলক কাজে ল্যাপটপ ব্যবহার করা ভাল। বর্তমানে ল্যাবটপগুলো আগের চেয়ে আরও কমপ্যাক্ট এবং একইসাথে অনেক ভাল পার্ফমেন্সও দিয়ে থাকছে। তাই যেকোন জায়গায় ব্যবহার করতে পারেন সহজে। গেমিং ল্যাপটপগুলিতে উচ্চ প্রযুক্তি সম্পন্ন হার্ডওয়্যার থাকে যা একদিকে যেমন ভাল গেমিং অভিজ্ঞতা দিবে, অপরদিকে প্রোফেশনাল কাজও ভালবাবে সম্পন্ন করতে পারবেন। 

ল্যাপটপে বিল্ট-ইন ডিসপ্লে পাশাপাশি একটি অনবোর্ড কীবোর্ড এবং ট্র্যাকপ্যাড থাকে । আর ব্যাটারি চালিত হওয়ায় আপনার জন্য বেশি সুবিধাজনক হতে পারে। মাউস,  ডকিং স্টেশন, কীবোর্ড এবং বাহ্যিক গেমিং ডিসপ্লেগুলির মতো অতিরিক্ত সরঞ্জামগুলি ল্যাপটপের বহুমুখিতা আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। ফলে আপনি ডেস্কটপের মতো অভিজ্ঞতাও পেতে পারেন।

তাই আপনি যদি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে পরিবর্তিত হন তাহলে ল্যাপটপ আপনার জন্য সুবিধাজনক হতে পারে।

ল্যাপটপ কাস্টমাইজেশন সুবিধা:

ল্যাপটপের কমপ্যাক্ট ডিজাইনের কারণে এগুলি আপগ্রেড করা যথেষ্ট পরিমাণে কঠিন। যদিও বর্তমানে অনেক বেশি কাস্টমাইজেশন সুবিধা পাওয়া যায়। তবে আপনাকে তার জন্য কেনার সময় আপগ্রেডযোগ্য কিনা তা দেখে কিনতে হবে। কেননা অনেক ল্যাবটপের বিল্টইন হার্ডওয়ার থাকে সেটা পরিবর্তন অসম্ভব ।

তাই সার্বিক দিক চিন্তা করে ল্যাপটপ নির্বাচন করুন। বর্তমানে ram, প্রসেসর পরিবর্তন করা যায় অধিকাংশ ল্যাপটপে। তাই সেরা কাস্টমাইজেশন সুবিধা সহ গেমিং ল্যাপটপ নির্বাচন করুন।

ডেস্কটপ

সাধারণত আপনি যদি জায়গা পরিবর্তন না করেন সেক্ষেত্রে ডেস্কটপ নির্বাচন করতে পারেন। কারণ ডেস্কটপগুলি অনেক বড় এবং প্রায় পোর্টেবল নয়। ডেস্কটপগুলি অনেক বিস্তৃত থাকে । উচ্চ মানের মাদারবোর্ড, অধিক ইউএসবি পোর্ট, গ্রাফিক্স কার্ড, উন্নতমানের পাওয়ার সাপ্লাই সমৃদ্ধ এক ডেস্কটপ দিয়ে আপনি প্রফেশনাল কাজ অনেক অনায়াসেই করে ফেলতে পারবেন।

এছাড়া বর্তমানে গেমিং ডেস্কটপগুলিতে প্রচুর কাস্টমাইজেশন করা যাচ্ছে। যা আপনার গেমিং অনুভূতি কে আকর্ষণীয় করে তুলবে। তাছাড়া গেমিং মনিটর আপনার জন্য বাড়তি সুবিধা হতে পারে। লম্বা সময় পারফরম্যান্স ধরে রাখার জন্য ডেস্কটপ খুবই দক্ষ হয়ে থাকে।

এছাড়া বর্তমানে ভাল মানের অল-ইন-ওয়ান-পিসি পাওয়া যায়। যদি পোর্টেবল ল্যাপটপের চিন্তা না করে থাকে তবে ডেস্কটপ নির্বাচন করা আপনার জন্য সঠিক হতে পারে।

ডেস্কটপ কাস্টমাইজেশন সুবিধা:

ডেস্কটপগুলোতে প্রচুর কাস্টমাইজেশনের সুবিধা রয়েছে। আপনি আপনার পিসির প্রতিটি কম্পোনেন্ট পরিবর্তন করতে পারবেন। মাদারবোর্ডের এবং প্রসেসরের উপযুক্ত যেকোন কোম্পানির কম্পোনেন্ট আপনি ব্যবহার করতে পারবেন।

তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য একাধিক কুলিং ফ্যান ব্যবহার করা যায়। এছাড়া আপনি সহজে আপনার হার্ডওয়্যার আপগ্রেড করতে পারবেন। ফলে  আপনার পিসির সর্বোচ্চ পারফরম্যান্স উপভোগ করতে পারবেন।

শেষ কথাঃ

একটি ভাল মানের লেটেস্ট জেনারেশনের ল্যাপটপ দিয়ে আপনি যেকোন সাধারন কাজ অনায়াসেই করতে পারবেন। তবে আপনি যদি বিশেষ কোন উদ্দেশ্যে ল্যাপটপ কিনতে চান তাহলে অবশ্যই ভালবাবে যাচায় করে কিনবেন যাতে সেই ল্যাপটপটি আপনার চাহিদা পূরনে সক্ষম কিনা।

Leave a Reply